বিজয়ের মাস

সহজে Powered by Blogger রিমুভ।

প্রথমে আপনার ব্লগে লগিন করুন তারপর Login>template>edit html>Proceed এবার নিচের কোড টুকু খুজুন এবারএই লাইনের ভিতরেtrueলেখাটি false করে দিন। এবার সেভ করুন। লেআউট এ গিয়ে attribution নামের গ্যাজেটটি রিমুভ করুন | ব্যাস কাজ শেষ|

Automatic updeting sitemap

গুগলে ব্লগ সাবমিট করে প্রচুর ভিজিটর পাওয়া সম্ভব | এজন্য যা করবেন 1.প্রথমে গুগল ওয়েবমাস্টারেযান। 2.সাইন ইন করেন এখানে আপনার জিমেইল অ্যাকাউন্ট আপনার আইডি। 3.Add A Site এ ক্লিক করুন। 4.এবার আপনার সাইটের লিঙ্কটি দিন এবং Continue এ ক্লিক করুন। এবার সাইটম্যাপ সাবমিট করতে Sitemap এ ক্লিক করুন। Add/Test Sitemap এ ক্লিক করুন এবং নিচের লেখা টুকু দেন http://yoursite.blogspot.com/atom.xml?redirect=false&start-index=1&max-results=500 এবার Submit Sitemap এ ক্লিক করুন। ব্যস আপনার কাজ শেষ | এটি অটোমেটিক আপটেড হবে |

Bkash থেকে ফ্লেক্সিলোড যে কোন ফোনে





Bkash account থেকে যে কোন মোবাইল ফোন রিচার্জ করতে যা করতে হবে** প্রথমে *247# ডায়াল করুন |
> Payment নির্বাচন করুন |
> Merchant bkash account no এর জায়গায়01857525252 দিন |
> Amount এ যত টাকা ফ্লেক্সিলোড নিবেন তার থেকে ২ টাকা বেশি দিন (খরচ স্বরুপ ২ টাকা বেশি)
> Reference এর জায়গায় আপনার ফোন নং দিন( যে নং এ টাকা লোড নিবেন)
> Counter no এর জায়গায় ১ লিখুন |
> Confirm করতে আপনার Pin দিয়ে Ok করুন |
ব্যাস কাজ শেষ | আধা ঘন্টা থেকে এক ঘন্টার মধ্যেই টাকা পৌছে যাবে |

ব্লগে অটো পোস্ট কি এবং কিভাবে ?

অটো পোস্টঃ সাধারনত নির্দিষ্ট দিনে ও সময়ে ব্লগের লেখা অটোমেটিক প্রকাশ করাই হচ্ছে অটো পোস্ট | এজন্য > প্রথমে ব্লগার ড্যাশবোর্ড এ যান। > Create a Post এ ক্লিক করুন। > একটি পোস্ট লিখুন। > এবার ডান পাশে দেখুন Schedule লেখা আছে। > এখানে ক্লিক করুন। > এবার দেখুন Automatic Set date and Time লেখা আছে। > এখানে Set date and time এ ক্লিক করুন। > আপনি যেদিন এই লেখাটি প্রকাশ করতে চান সেদিনের তারিখ এবং সময় সেট করুন | > এবার Done এ ক্লিক করুন। > এবার পাবলিশ এ ক্লিক করুন। তাহলে ঠিক নির্দিষ্ট সময়ে লেখাটি প্রকাশ হবে।

Permalink কি ?

Permalink হচ্ছে Permanent Link | বাংলাতে যাকে স্থায়ী সংযুক্তি বা লিঙ্ক বলে। একে পারমালিঙ্ক বলার কারন, যে কোন লেখা পোস্ট করা হলে এর সাথে সাথে যে লিঙ্ক তৈরি হয় সেটি আর পরিবর্তন করা যায় না। তাই অবশ্যই পোস্ট করার সময় ভালো ভাবে দেখে নিতে হবে লিঙ্ক ঠিক আছে কি না। তবে যারা ইংলিশ ব্লগ করেন তাদের ক্ষেত্রে তেমন কোন সমস্যা হয়না | কারন সাধারনত ইংরেজি পোস্টের টাইটেলের সাথে মিল করে অটো লিঙ্ক তৈরি হয় কিন্তু বাংলার ক্ষেত্রে এটি অটো লিঙ্ক তৈরি হতে পারে না।তাই যদি আপনি বাংলাতে পোস্ট করেন তাহলে অবশ্যই লিঙ্ক দেখে হবে।

Permalink কত প্রকার ও কি কি ?

Permalink দুই প্রকারঃ ১।অটোমেটিক পারমালিঙ্কঃ সাধারনত এটিই সিলেক্ট করা থাকে।অটো সিলেক্ট করা থাকলে পোস্টের টাইটেলের সাথে মিল রেখে লিঙ্ক তৈরি হয়ে যাবে।যদি টাইটেল বাংলাই হয় তবে সেটি অটো নেবে তবে লিঙ্কটি হবে এমন http://www.blogtipsnticks.com/2013/11 /blog-post_24.html আর যদি ইংলিশ হয় তবে সেটি হবে এরকম http://www.blogtipsnticks.com/2013/11 /blogger-post-permalink.html ২।কাস্টম পারমালিঙ্কঃ কাস্টম সাধারনত সিলেক্ট করা থাকে না এটি নিজেকে সিলেক্ট করে নিতে হয়।সিলেক্ট করে আপনি আপনার পছন্দ মত লিঙ্ক তৈরি করে দিতে পারবেন।

অতি সহজে Permalink পরিবর্তন করুন

Permalink পরিবর্তন করার জন্য যা করতে হবে ** প্রথমে যে কোন একটি পোস্ট লিখুন তার টাইটেল দিন। এবার ডান পাশে দেখুন Links লেখা আছে | এখানে ক্লিক করুন | দুইটা অপশন পাবেন | এখান থেকে কাস্টম পারমালিঙ্ক সিলেক্ট করুন | এবার আপনার পোস্টের টাইটেলের সাথে মিল রেখে বা আপনার পছন্দমত কোন লিঙ্ক তৈরি করুন। এবার Done বাটনে এ ক্লিক করুন | ব্যাস তাহলে পোস্টের পারমালিঙ্কটি তৈরি হয়ে গেছে।

জেনে নিন কলার খোসার উপকারীতা



কেমন আছেন আপনারা সবাই? নিশ্চয় ভালো আছেন। আজকে কলার খোসার উপকারী দিক নিয়ে হাজির হলাম। ঔষধ এর কাজ করবে এই কলার খোসা। মনে প্রশ্ন আসতে পারে, এটা আবার কেমন কথা? হ্যাঁ, অনেকেই বিশ্বাস করবে না কলার খোসা আবার ঔষধ এর কাজ করে। বিপুল জনপ্রিয় কলা খেতে যেমন ভালো, তেমনি ভালো এর পুষ্টি গুন। আর শুধু পুষ্টি গুন নয়, কলার খোসাও ব্যবহার করা যায় ঔষধ হিসাবে। তাই চলুন দেরি না করে জেনে নেই কলার খোসার কার্যকারিতা সম্পর্কে।

ঝকঝকে দাঁতের জন্যঃ প্রাকৃতিক উপায়ে সাদা ঝকঝকে দাঁতের জন্য কলার খোসা ব্যবহার করতে পারেন। অনেকেই দাঁত থেকে হলদে ভাবটা কিছুতেই ওঠাতে পারেন না। কলার খোসার ভেতরের দিকটা দিয়ে কিছুক্ষণ দাঁত মাজুন। দাঁতের ব্যাথা কমাতেও কলার খোসা ভালো কাজ করে । দাঁতে পাকা কলার খোসা প্রতিদিন ঘষুন, এভাবে এক সপ্তাহ ব্যবহার করলে তা ভালো কাজে দেবে।

দাদের ওষুধঃ কলার খোসা দাদের ওষুধ হিসেবেও কাজ করে। চুলকালে সেই অংশে কলার খোসা ঘষে দিলে চুলকানি বন্ধ হবে এবং দ্রুত দাদ সেরে যাবে।

খোস পাঁচড়াঃ ত্বকে কোথাও পাঁচড়া-জাতীয় কিছু হলে সেই জায়গায় কলার খোসা মেখে রাখুন, অথবা কলার খোসা পানির মধ্যে সেদ্ধ করে সেই পানি দিয়ে সংক্রমিত জায়গা কয়েক দিন ধুয়ে ফেলুন। উপকার পাবেন।

পোকা-মাকড় কামড়ানোঃ যদি কোনো পোকা-মাকড় হঠাত কামড় দিয়ে বসে এবং চুলকাতে থাকে এর জন্য কলার খোসা কাজে লাগাতে পারেন। দ্রুত ব্যথা ও চুলকানি সেরে যাবে।

শরীরের অবসাদঃ ময়লা হিসেবে কলার খোসা ফেলে দেওয়ার চেয়ে তা রান্না করে খাওয়া যেতে পারে। এতে অবসাদ দূর হয়। কলার খোসায় মুড-নিয়ন্ত্রণকারী রাসায়নিক সেরোটোনিন থাকে প্রচুর পরিমাণে। সেই সেরোটোনিন শরীরের অবসাদ দূর করে।


কিভাবে Blogger ব্লগে CSS Code Box যুক্ত করবেন

এজন্য ব্লগে লগইন করুন। অতঃপর ড্যাশবোর্ড থেকে Template ক্লিক করুন।
এবার Customize ক্লিক করে Advance থেকে Add CSS ক্লিক করুন! এবার নিচের কোডটুকু বক্সে পেস্ট করুন ।




এখন Apply to blog ক্লিক করে বের হয়ে আসুন। আপনার কাজ শেষ। এবার যখন আপনি কোড লিখবনে তখন HTML মুডে গিয়ে এভাবে লিথুন
<div class="code"> Paste YOUR CODE </div>

এখন পাবলিশ করুন । আজকের মত বিদায়...........